ডাক্তারি পরামর্শ

শিশুর ঘামাচি: কী করবেন

গ্রীষ্মের দাবদাহে ছোটরা এমনিতেই অস্থির। এর মধ্যে শরীরে ঘামাচি হলে তাদের ভোগান্তি আরও বাড়ে। এটি মূলত ঘর্মগ্রন্থির সমস্যা। শরীরে ঘাম তৈরি হলে ওই গ্রন্থির মাধ্যমে তা ত্বকের উপরিভাগে চলে আসে। প্রচণ্ড গরমে ঘাম অনেক বেশি তৈরি হয়, তখন এত বেশি পরিমাণ ঘাম ঘর্মগ্রন্থির ছিদ্রপথে বেরোতে পারে না। ফলে তা ত্বকের নিচে এসে জমা হতে থাকে এবং সে স্থান ফুলে ওঠে। এভাবেই ঘামাচি তৈরি হয়, সেই সঙ্গে থাকে চুলকানি ও জ্বালাপোড়া।

গরমে শিশুদের ঘামাচি থেকে বাঁচাতে করণীয়:
# ঘামাচিগুলোকে নখ দিয়ে খোঁচানো যাবে না।

# পাতলা কাপড় সামান্য ভিজিয়ে শিশুর শরীর মুছে দিন। কাপড়ের ভেতর বরফকুচিও ব্যবহার করতে পারেন।

# শিশুকে যথাসম্ভব শীতল পরিবেশে রাখুন। ফ্যান বা পাখা চালাতে বাধা নেই। ফ্যানের বাতাসে শিশুর ঠান্ডা লাগার ভয় নেই, তার চেয়ে গরমে ঘাম থেকে ঠান্ডা লাগার আশঙ্কা বেশি।

# গরমের দিনে শিশুকে প্রতিদিন গোসল করাতে হবে। গোসলের পানিতে কোনো অ্যান্টিসেপ্টিক দেওয়ার প্রয়োজন নেই।

# শিশুকে হালকা সুতির কাপড় পরান ও প্রচুর পানি পান করান।

# গরমে তেল, লোশন একেবারেই ব্যবহার করবেন না। তবে ঘামাচি পাউডার দিতে পারেন।

লালচে দানার মতো দেখতে সব ফুসকুড়ি বা র্যাশই কিন্তু ঘামাচি নয়। তাই এ ধরনের র্যাশের সঙ্গে জ্বর, সর্দি-কাশি বা অন্য জটিলতা থাকলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
ডা. আবু সাঈদ
শিশু বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

ফেসবুক মতামত

জন মত দিয়েছেন

Show Buttons
Hide Buttons

সর্বশেষ খবর জানতে ফেসবুক এ আমাদের সাথে থাকুন

আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন খবর সংগ্রহ করে থাকি আপনারই জন্য। আমরা চাই আপনারা জানুন "সদ্য সংবাদ, সবার আগে"।


সর্বশেষ খবর জানতে ফেসবুক এ আমাদের সাথে থাকুন

আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন খবর সংগ্রহ করে থাকি আপনারই জন্য। আমরা চাই আপনারা জানুন "সদ্য সংবাদ, সবার আগে"।